বমি বমি ভাব হলে কি করব।বমি বমি ভাব।

পোস্টটি শেয়ার করুন

বমি বমি ভাব হলে কি করব।বমির কারণ ও প্রতিকার।বমি বমি ভাবের লক্ষণ।বমি হওয়ার পর করণীয়।বমি বমি ভাব। 

আপনারা অনেকে অনলাইনে সার্চ করেন বমি বমি ভাব হলে কি করববমির কারণ ও প্রতিকার

আবার কেও কেও সার্চ করে বমি বমি ভাবের লক্ষণবমি হওয়ার পর করণীয়বমি বমি ভাব। 

তাই আপনার সমস্ত প্রশ্নের উত্তর নিয়ে এই পোস্টটি লিখলাম । 

আশা করি এই পোস্টটি আপনার অনেক উপকারে আসবে । 

পোস্টটি প্রথম থকে শেষ পর্যন্ত মন দিয়ে পড়ুন।

রোগের বিবরণ

পৌষ্টিকতন্ত্র বিশেষতঃ পাকস্থলী মধ্যস্থিত পাচিত বা অপাচিত খাদ্যবস্তু উপরের দিকে উঠে আসা এবং তা মুখগহ্বর দিয়ে নির্গত হয়ে যাওয়াকে বমি বলা হয়। বমি করার ইচ্ছা জাগাকে গা বমি বলা হয়।

আক্রান্ত তন্ত্র 

পৌষ্টিক তন্ত্র এবং স্নায়ুতন্ত্র এই রোগের দ্বারা আক্রান্ত হয়।

আক্রমণের বয়স

এই রোগ হওয়ার জন্য কোন নির্দিষ্ট বয়স নেই। সব বয়সেই এই রোগ হতে পারে।

আক্রান্ত লিঙ্গ

এই রোগ হওয়ার জন্য কোন নির্দিষ্ট লিঙ্গ নেই। স্ত্রী এবং পুরুষ উভয়ের সমানভাবে এই রোগ হতে পারে।

বমির কারণ ও প্রতিকার। বমির কারণ।

১। অধিক পরিমাণে খাদ্য গ্রহণের ফলে পাকস্থলীর গায়ে চাপ সৃষ্টি হওয়ার ফলে বমিভাব সৃষ্টি হয়।

২। অতিরিক্ত অম্ল সৃষ্টি হওয়া। পেট ফাঁপা জনিত কারণ ।

৩। মাদক দ্রব্য সেবনের ফলে বমিভাব সৃষ্টি হয়।

৪। কৃমি রোগে ভোগা।

৫। বদহজম জনিত কারণেও বমি ভাবের সৃষ্টি হয় ।

৬। জন্ডিস বা হেপাটাইটিস রোগ হওয়া।

৭। অ্যাপেন্ডিসাইটিস বা উপাঙ্গ প্রদাহ হওয়া।

৮। ম্যালেরিয়া রোগে জ্বর বৃদ্ধি পাওয়া।

৯। ক্রনিক আমাশয়ে ভোগার ফলে।

১০। খাদ্য দৃষ্টি, কলেরা বা ডায়রিয়া রোগীদের ডিহাইড্রেশন অর্থাৎ জলশূন্যতা দেখা দিলে বমি হয় অথবা গা বমি থাকে।

১১। এছাড়া যানবাহনে ভ্রমণের কারণে অনেকের গা বমি বা বমি হতে দেখা যায়।

১২। মহিলাদের গর্ভধারণ ঘটলে স্বাভাবিক কারণে গা বমি ভাব বা বমি হতে দেখা যায়।

১৩। অস্ত্রোপচার বা রেডিওথেরাপির ফলে বমিভাব বা বমি হতে পারে।

বমি বমি ভাবের লক্ষণ

১। পেটের ভেতর পাক দিয়ে গা গুলিয়ে ওঠে, শরীর আনচান করে, বুক ধরফর করে, সশব্দে বমি বের হয়ে আসে।

২। মুখে নোনতা বা টক আস্বাদবিশিষ্ট জল ওঠে।

৩। হজম না হওয়া খাদ্যবস্তু সব ওঠে আসতে থাকে।

৪। বমি হতে হতে গলা চিরে রক্ত বের হয়ে আসতে পারে।

৫। পেটে ব্যাথা হয়ে যায়।

৬। মাথায় যন্ত্রনা হতে পারে। অনিদ্রা হতে দেখা যায়।

বমি হওয়ার পর করণীয়

গ্লুকোজের জল, ডাবের জল, চিনির সরবৎ, মুড়ি বা মেথি ভেজানো জল প্রভৃতি বরফে রেখে ঠাণ্ডা করে খেতে দিলে বমি বন্ধ হয়।

এগুলো অল্প অল্প করে বারংবার খাওয়াতে হয়। রোগী সুস্থ বোধ করলে ঝোল – ভাত দেওয়া যায়।

বমি বমি ভাব

 বমি বমি ভাব প্রত্যেকের কাছে খুব অস্বস্তিকর ব্যাপার। বমি ভাব বিভিন্ন কারণে হয়ে থাকে।

এখন অনেক গ্যাস চালিত গাড়ি রাস্তায় চলছে।

তাই অনেক পুরুষ ও মহিলাকে দেখা যায় ওই সমস্ত গ্যাস চালিত গাড়িতে চড়ার কিছুক্ষণ পরেই তাদের বমি বমি ভাব হতে শুরু করে।

এছাড়া অতিরিক্ত খাদ্যগ্রহণ, ক্লান্তি, ইত্যাদি কারণে বমি বমি ভাব হয়ে থাকে। অনেকের আবার ভ্রমণ জনিত কারণে গা বমি ভাব হতে দেখা যায়।

যখন গা বমি ভাব দেখা যাবে তখন বিভিন্ন সুগন্ধি বস্তুর ঘ্রাণ নিলে ভালো হয়।

অনেকে গা বমি ভাবের সময় লেবুর ঘ্রাণ নেই এতেও অনেক ক্ষেত্রে ভাল ফল হয়।

বমি বমি ভাব কাটাতে আদা , লবঙ্গ , জিরা , লেবু খুব সাহায্য করে ।

উপসংহার

বমি হওয়ার আগে বমিভাব হয়ে থাকে। কিন্তু বমি বমি ভাব থাকলেই যে বমি হয়ে যাবে তা এমন কোনও কারণ নেই।

অতিরিক্ত বমি বমি ভাব ওষুধ খাওয়ার দ্বারা ভাল করা যায় না।

 তবে বমি বমি ভাব বা বমির কারণ না জানা থাকলে তাহলে অবশ্যই একজন উপযুক্ত ডাক্তারের কাছে চিকিৎসা করান।

আশা করি আপনার সমস্ত প্রশ্নের উত্তর খুঁজে পেয়েছেন । 

 এই পোস্টটিতে আপনি যে সমস্ত প্রশ্নের উত্তর খুঁজে পেয়েছেন তা হল – বমি বমি ভাব হলে কি করববমির কারণ ও প্রতিকারবমি বমি ভাবের লক্ষণবমি হওয়ার পর করণীয়বমি বমি ভাব। 

আশা করি এই পোস্টটি আপনার অনেক উপকারে আসবে। 

 আপনাকে অনেক ধন্যবাদ পোস্টটি পড়ার জন্য।

এই পোস্টটি আপনার উপকারে আসলে শেয়ার করতে ভুলবেন না ।


পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Comment