বিশ্বের আশ্চর্য খবর

পোস্টটি শেয়ার করুন

বিশ্বের আশ্চর্য খবর,পৃথিবীর আশ্চর্য খবর

আপনি কি বিশ্বের আশ্চর্য খবর সম্পর্কে জানতে আগ্রহী । যদি তাই হয় আপনি সঠিক পোস্টে এ এসে পৌঁছেছেন ।

আমি এই পোস্টটিতে আপনাকে একটি ছোট্ট ছেলের প্রতিভা সম্পর্কে জানাবো।

সুতরাং পোস্টটি প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত ভালো করে পরবেন ।

বিশ্বের আশ্চর্য খবর ( আশ্চর্য বালক, পিছিয়ে পড়লেন উইসেন বোল্টও )

ছোট্ট ছেলেটার উচ্চতা একেবারেই নগণ্য। কোলে তুললে আরামসে উঠে যাবে।

মাথার চুলগুলো একটু বড়। কাঁধ ছাপিয়ে নেমে গেছে। চোখের চাউনি কিংবা পুরো অবয়ব, একেবারে ক্যারিবিয়ানদের মতো।

হাঁটতে বললে দৌড়ায়, আর দৌড়াতে বললে নিমেষে পগারপার। টিকিট ও খুঁজে পাওয়া যাবে না।

প্রতিযোগিতায় নামলে বাকিরা যেখানে শুরু করবে, ও সেখানে শেষ করে ফের একবার শুরু করে দিতে পারবে। এমনই সে প্রতিভা।

নাম – রুডলভ ব্লেজ ইনগ্রাম। বয়স মাত্র সাত বছর। 

কিন্তু এই বয়সেই দুর্দান্ত দৌড়বিদ হয়ে উঠেছে ফ্লোরিডার এই নয়া উইসেন বোল্ট। হ্যাঁ ইনগ্রাম এতটাই গতিতে দৌড়ায় যে এখন থেকেই তাঁকে বোল্টের সঙ্গে তুলনা করা হচ্ছে। অনেকে তো আবার তাকে আরও বেশি হাইভোল্টেজ মানছেন।

ফ্লোরিডার টাম্পা উপকূলে ছোট্ট ছোট্ট পায়ে দৌড়াতে দৌড়াতে বেড়ে উঠেছে সাত বছরের ইনগ্রাম। বর্তমানে ইনগ্রাম ফ্লোরিডার টাম্পা রেভেন দলের ছোট্ট দৌড়বিদ।

আরও পড়ুন – পৃথিবীর আশ্চর্য বালক

প্রতিভা

ইতিমধ্যেই এএইউ ন্যাশনাল চ্যাম্পিয়ন হয়ে গিয়েছে দু – দুবার। শুধু তাই নয়, এর মধ্যেই চুম্বক গতিতে দৌড়ে তাক লাগিয়ে দিচ্ছে। ৫৫ মিটার স্প্রিন্টে তার দৌড় অনেককেই অবাক করে দিয়েছে।

একটা ছোট্ট ছেলে এভাবে সমুদ্রের পিচে বালি ভর্তি ট্রাকে এমনভাবে স্প্রিন্ট টানছে, সে দৃশ্য চোখে দেখাটাও যেন সমুদ্রের গভীরতা মাপার মতোই সৌন্দর্য এনে দেয়। 

ইনগ্রামের মুখ থেকে কোনও কথা শোনা যায় না। কারণ সে এতটাই ছোট যে কিছু জিজ্ঞাসা করলে শুধু মুখের মিষ্টি হাসি ছাড়া অন্য কিছু দিতে পারে না। সেটা জানেন তার কোচ জিমি ওয়াটসন।

উইসেন বোল্ট এর সঙ্গে তুলনা

এমনকি সাত বছর বয়সে সে যে সময়ে নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছে গিয়েছে, তাকে উইসেন বোল্টের থেকেও এগিয়ে রাখছেন অনেকেই।

কারণ উইসেন বোল্টও নাকি সাত বছর বয়সে এমন দৌড় দেখাননি। ভবিষ্যতের উইসেন বোল্টও তাকে বলা হচ্ছে।

স্বয়ং বোল্ট ও এমন রানারকে দেখে অবাক হয়ে গিয়েছিলেন কয়েকদিন আগেই।

কোচের কথা

কোচ ওয়াটসন বলছেন, ‘ ওর লক্ষ্য একদম স্হির থাকে। কেউ সেখান থেকে ওকে সরাতে পারে না।

সাত বছর বয়সে এতটা স্হির লক্ষ্য নিয়ে আমি কাউকে এগোতে দেখেনি।

ও যখন দৌড়াতে শুরু করে তখন একটা লেভেল পর্যন্ত দেখা যায়, তারপর কয়েক মুহূর্তের জন্য ওকে দেখা যায় না, যখন ও প্রত্যক্ষ হয় তখন ল্যাপ পরিপূর্ণ করে ফেলেছে। এমন প্রতিভা আমি কোনোও দিন দেখিনি’ ।

কোচ বলেন , ‘ ইনগ্রাম যখন দৌড়ায় তখন আপনি ওকে কোনও ভাবেই পরিমাপ করতে পারবেন না।

এত ছোট হয়েও ইনগ্রাম যেভাবে নিজের লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য মরিয়া হয়ে থাকে তা ভাবা যাবে না। ওই আমাদের প্রশিক্ষণকে একটা মাত্রা দিয়ে যাচ্ছে। কথা দিয়ে কথা রাখে। ঠিক যে দৌড়ে যতটা শক্তি লাগে, ততটা শক্তি দিয়েই দৌড়ায়’ ।


আরও পড়ুন – হারানো মোবাইল খুঁজে পাওয়ার উপাই

আরও পড়ুন – সাহাবী বৃক্ষ

আশা করি আপনার বিশ্বের আশ্চর্য খবর – ছোট্ট ছেলেটির প্রতিভা শুনে খুব ভালো লেগেছে।

আপনাকে অনেক ধন্যবাদ এই পোস্টটি পড়ার জন্য।

পোস্টটি ভালো লাগলে বন্ধু – বান্ধবের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না ।


পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Comment