ঘুম না হলে কি করা উচিত / Ghum Na Asle ki korbo

172
ঘুম না হলে কি করা উচিত
সরকারি সুবিধা,সরকারি প্রকল্প, শিক্ষামূলক পোস্ট,সমস্ত ধরনের অফার,ইনকাম সম্পর্কিত পোস্ট (Online Shikkha Site টেলিগ্রাম চ্যানেলে যুক্ত হন )Click Here

আপনি কি ঘুম না হলে কি করা উচিত / Ghum Na Asle ki korbo সম্পর্কে জানতে চান ,

যদি তাই হয়, 

আপনি সঠিক পোস্টে এসেছেন।

আমি এই পোস্টটিতে আপনাদের সাথে শেয়ার করছি – ঘুম না আসলে করণীয়,ঘুম না হলে করণীয়, ঘুম না হলে কি করতে হয়, Ghum Na Howar Karon,  Ghum Na Asar Karon ইত্যাদি।

এই পোস্টটিকে প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত মন দিয়ে পড়ার অনুরোধ রইল।

ghum na asle ki korbo
ghum na asle ki korbo

Ghum Na Asle ki korbo / ঘুম না আসলে করণীয়

১. রাত্রে ঘুমাবার দু’ঘণ্টা আগে থেকে টিভি দেখা ও মোবাইল ব্যবহার করা থেকে নিজেকে বিরত রাখুন।

কারণ মোবাইল ও টিভি থেকে যে নীল আলো বের হয়ে আসে তা আমাদের শরীরের মেলাটোনিন নামক হরমোন উৎপাদনে নানা সমস্যা সৃষ্টি করে থাকে এবং আমাদের ঘুমের ব্যাঘাত ঘটাতে থাকে।

২. ঘুমানোর আগে আপনাকে কয়েকটি বিষয় লক্ষ্য রাখতে হবে যে বিছানা ঠিকঠাক গোছানো আছে কিনা, আপনি যে ঘরটিতে শোবেন সেই ঘরের ভেতরে পর্যাপ্ত বাতাস আছে কিনা এবং ওই ঘরের চারপাশ অন্ধকার আছে কিনা।

৩. আপনার শোয়ার ঘরে মৃদু আলো ও তাজা ফুল রাখতে পারেন।

৪. শুয়ে আপনার যদি ঘুম না আসে তাহলে আপনি বই পড়তে পারেন কারণ বই পড়ার অভ্যাস ঘুম আসার পক্ষে খুব কার্যকর।

৫. নিয়মিত হাঁটা, সাঁতার কাটা ও শরীরচর্চা অর্থাৎ এক্সারসাইজ করতে হবে। সাঁতার কাটতে না পারলে আপনার ডেইলি রুটিনে হাঁটা ও শরীরচর্চা রাখুন।

৬. শোবার আগে যদি কোনো চিন্তা-ভাবনা আপনার মাথায় ঘুরপাক খায় তাহলে আপনি সেটি তৎক্ষণাৎ খাতায় লিখে ফেলুন এবং নিজে থেকে মনস্থির করুন যে পরদিন সকালে এই সমস্যাটা নিয়ে ভাবনা চিন্তা করব।

৭. ঘুমানোর আগে নিজেকে যে কোনো কাজ থেকে বিরত রাখার চেষ্টা করুন। আপনি নিয়মিত চেষ্টা করুন নির্দিষ্ট সময়ে শুয়ে পড়ার এবং নির্দিষ্ট সময়ে ঘুম থেকে ওঠার। ছুটির দিনগুলোতে এই নিয়মগুলো মেনে চলুন।

৮. যে কোন নেশা জাতীয় দ্রব্য যেমন ধূমপান ও মদ্যপান ইত্যাদি থেকে নিজেকে বিরত রাখুন।

৯. রাত্রিবেলায় বেশি পেট ভরে খাওয়া ও ভারী খাবার খাওয়া থেকে নিজেকে বিরত রাখুন কারণ এর ফলে আপনার ঘুমের অসুবিধা সৃষ্টি হতে পারে।

১০. আপনার যদি কোন রাত্রে ঘুম ঠিক না হয় তাহলে পরেরদিন ঘুমাবেন না কারণ আপনি যদি পরেরদিন ঘুমান তাহলে সেই রাত্রে আপনার ঘুমের অসুবিধা হতে পারে।

১১. ভালো ঘুম হওয়ার ক্ষেত্রে পরিষ্কার বিছানার চাদর, বালিশের ওয়াড়, তোয়ালে ইত্যাদি খুবই কার্যকর।

১২. ঘুমানোর আগে স্মার্টফোন ব্যবহার থেকে নিজেকে বিরত রাখুন এবং স্মার্টফোন নিজের বিছানার কাছ থেকে দূরে সরিয়ে রাখুন।

উপরের সমস্ত নিয়ম গুলি মানা সত্বেও যদি আপনার ঘুম না আসে অর্থাৎ আপনার ঘুমের যদি কোনো অসুবিধা হয় তাহলে অবশ্যই একজন উপযুক্ত চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

ডাক্তারবাবু দেখবেন যে আপনার ঘুম না আসার কারণ খুঁজে বার করার চেষ্টা করবে এবং সেই কারণের সমস্যার সমাধানের চেষ্টা করবে।


আরও পড়ুন ক্লিক করে –

করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচার উপায় 

বদহজমের কারণ ও তার প্রতিকার


আমাদের সুস্থ জীবন যাপনের জন্য ঘুম কেন প্রয়োজন

ঘুম হলো আমাদের মস্তিষ্কের একটি জটিল ক্রিয়া ঘুমের কাজ হলো আমাদের শরীরকে ক্লান্ত থেকে বিশ্রাম দেওয়া এবং আমাদের শারীরিক ক্ষমতা কে পুনরায় ফিরিয়ে আনা।

সুস্থ থাকার জন্য একজন মানুষের নির্দিষ্ট সময়ে ঘুমানো অবশ্যই দরকার।

আমাদের শরীরে যত রকম অঙ্গ পতঙ্গ আছে এবং আমাদের মস্তিষ্কের যতরকম কাজকর্ম চলে সবই কিন্তু ঘুমানোর সময় বিশ্রাম পায়।

যখন আমাদের ঘুম ঠিক না হয় তখন আমাদের শরীরের সমস্ত অঙ্গ পতঙ্গের বিশ্রামে ব্যাঘাত সৃষ্টি হয়।

ভালো ঘুম আমাদের শরীরকে বিভিন্ন রোগ থেকে বিরত রাখে যেমন ডায়াবেটিস, হৃদরোগ, মানসিক রোগ ইত্যাদি।

দৈনিক কত ঘন্টা ঘুমের প্রয়োজন আমাদের শরীরে

দৈনিক কত ঘন্টা ঘুমের প্রয়োজন আমাদের শরীরে তা মূলত নির্ভর করে মানুষের বিভিন্ন বয়সের উপর।

সদ্যজাত  – ৪ থেকে ৫ বছর বয়স পর্যন্ত ১২ থেকে ১৬ ঘন্টা ঘুমের প্রয়োজন।

৬ থেকে ১২ বছর বয়সের শিশুদের জন্য দৈনিক ৯ থেকে ১২ ঘন্টা ঘুমের প্রয়োজন।

১৩ থেকে ১৮ বছর বয়সের কিশোর-কিশোরীদের দৈনিক সাধারণত 9 থেকে 12 ঘন্টা ঘুমের প্রয়োজন।

১৮ বছরের উর্ধ্বে অর্থাৎ একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের দৈনিক গড়ে ৭ থেকে ৮ ঘন্টা ঘুমের প্রয়োজন কিন্তু একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ দৈনিক ৬ ঘন্টা ঘুমিয়েও খুব ভালো জীবন যাপন করতে পারবে।

পর্যাপ্ত ঘুম না হলে আমাদের শরীরে কি কি রোগের বাসা বাঁধতে পারে

আমাদের বিশ্বে মানুষ যেসব রোগে মারা যাচ্ছে তা বেশিরভাগ রোগের সঙ্গে অনিদ্রার সম্পর্ক আছে।

ঠিকমতো ঘুম না হলে আমাদের শরীরে যেসব রোগের বাসা বাঁধতে পারে তা হল ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ, মোটা হয়ে যাওয়া, আলজেইমার, ডিপ্রেসান ইত্যাদি।


আরও পড়ুন ক্লিক করে –

হাত ধোয়ার প্রয়োজনীতা

দেশি মাগুর মাছ চেনার উপায় 


আশা করি এই পোস্টটি থেকে আপনি –  ঘুম না হলে কি করা উচিত / Ghum Na Asle ki korbo, ঘুম না আসলে করণীয়,ঘুম না হলে করণীয়, ঘুম না হলে কি করতে হয়, Ghum Na Howar Karon,  Ghum Na Asar Karon  সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন।

আশা করি এই পোস্টটি আপনার অনেক উপকারে এসেছে।

আপনাকে জানাই অনেক ধন্যবাদ রচনার এই পোস্টটি পড়ার জন্য।

এই পোস্টটি আপনার উপকারে আসলে বন্ধুবান্ধবের সাথে শেয়ার করার অনুরোধ রইল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here