মাছ চাষের সমস্যা ও সমাধান

160
মাছ চাষের সমস্যা ও সমাধান
সরকারি সুবিধা,সরকারি প্রকল্প, শিক্ষামূলক পোস্ট,সমস্ত ধরনের অফার,ইনকাম সম্পর্কিত পোস্ট (Online Shikkha Site টেলিগ্রাম চ্যানেলে যুক্ত হন )Click Here

মাছ চাষের সমস্যা ও সমাধান

আপনি কি মাছ চাষের সমস্যা ও সমাধান সম্পর্কে জানতে চান 

যদি জানতে চান, তাহলে আপনি সঠিক পোস্টটে এসেছেন।

পোস্টটি প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত পড়ে জ্ঞান অর্জন করে নিন।

পুকুরে মাছ মরে যাওয়া শুরু হলে বেসিরভাগ মানুষ চিন্তিত হয়ে পরে। আর এই অবস্থাতে ঠিক সিদ্ধান্ত না নিতে পারলে মাছ মারা যাওয়ার সংখ্যাটা অনেক বেড়ে যায়।  

লক্ষ্য করা যায় পুকুরে মাছ একসঙ্গে অনেকগুলি মরছে , দিনে এক একটা মারা যাচ্ছে না।  

আর মাছের এই মরে যাওয়ার লক্ষণ পর্যবেক্ষন করে সঠিক প্রতিকারের পদ্ধতির দিকে এগোতে হয়। 

সঠিক প্রতিকার পদ্ধতি অবলম্বন করার আগে কিছু স্পষ্ট ধারণা প্রয়োজন।  

তা এই বিষয় নিয়ে আমরা আজ বিস্তারিত জানবো।  

পুকুরে মাছ মরার কারণ

যখন আমাদের পুকুরে মাছ মরে যেতে শুরু করে তখন আমরা অনলাইনে বিভিন্ন প্রশ্নের সার্চ করি যেমন – পুকুরে মাছ মরার কারণ, পুকুরের মাছ ভাসার কারণ, পুকুরে মাছ ভাসার কারণ কি, পুকুরে মাছ ভাসে কেন ইত্যাদি।  

এই পোস্টটি প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত পড়ে বিস্তারিত জেনে নিন।  

১। মাছ প্রাকৃতিক এবং অপ্রাকৃতিক কারণে জলের বিভিন্ন রকমের বৈচিত্রর ফলে মারা যায়। 

২। জলদূষণ, রোগ, পরজীবী, বিষাক্ত শ্যাওলা, খারাপ আবহাওয়া ইত্যাদির কারণে মাছ মারা যেতে পারে। 

আমরা অনেক সময় দেখি পুকুর বা বড়ো জলাশয়ের মাছ মরে উপরে ভেসে উঠে। এই মাছ মরে ভেসে উঠার কিছু সাধারণ কারণ থাকতে পারে যেমন – 

১। কিছু মাছ বয়স জনিত কারণে মারা যায়। 

২। এছাড়া আঘাত, শীতকালীন ক্ষুদা বা বসন্ত কালীন চাপের ফলেও মারা যেয়ে থাকতে পারে।

কিন্তু আপনি যখন লক্ষ্য করবেন সমস্ত মাপের বড় সংখ্যক মাছ মারা যাচ্ছে এবং অল্প সময়ের মধ্যে মারা যাচ্ছে তখন আপনাকে তদন্ত করে তার কারণ নির্ধারণ করতে হবে।  

আরও পড়ুন ক্লিক করে – দেশি মাগুর ও হাইব্রিড মাগুর মাছ চেনার উপাই।

হঠাৎ মাছ বেশি মরে যাওয়ার কারণ 

গরমকালে রাতের দিকে অক্সিজেনের পরিমান কমে যায়।  

এই অক্সিজেনের পরিমান কমে যাওয়ার ফলে ভোর রাতের দিকে মাছের মৃত্যু সাধারণত দেখতে পাওয়া যায়।  

এবং যেসব পুকুরে অধিক সবুজ কণা লক্ষ্য করা যায় সাধারণত সেই পুকুরেই দেখা যায়। এর কারণ হলো যেমন – 

১। পুকুরের অক্সিজেন কমে যায় যখন পুকুরের অধিক সবুজ কণাগুলি মারা যায়। 

২। পুকুরের অক্সিজেন কমতে থাকে পুকুরে আগাছানাশক প্রয়োগ করলে। 

৩। ঝড় – বৃষ্টি বা কালবৈশাখীর কারণে জলে দ্রবীভূত অক্সিজেন কমতে পারে। 

৪। এছাড়া ঝড় – বৃষ্টির পর পুকুরে সার প্রয়োগ বা গবাদি পশুর মল – মূত্র পুকুর বা জলাশয়ে পড়লে হঠাৎ মাছ মরতে শুরু করে অক্সিজেনের অভাবে। 

৫। এছাড়াও হঠাৎ মাছ মরার কারণ হতে পারে – কীটনাশক, ক্লোরিন, জ্বালানি তেল, আমোনিয়া সার, অ্যাসিড এবং অন্যান্য বিষাক্ত রাসায়নিক।  

পুকুরে অক্সিজেনের অভাব হলে করণীয় 

আসলে আমরা মাছের লক্ষণ দেখে বুঝতে পারবো পুকুরের জলে অক্সিজেনের অভাব হয়েছে কিনা। 

আমরা যে সমস্ত লক্ষণগুলি দেখে বুঝতে পারবো যে পুকুরের বা জলাশয়ের অক্সিজেনের অভাব হয়েছে কিনা তা হলো – 

১। প্রধান লক্ষণ হলো – পুকুর বা জলাশয়ের উপরিভাগে মাছগুলি খাবি কাটবে।

২। পুকুর বা জলাশয়ের প্রবেশ বা বাহির পথে বা পুকুর বা জলাশয়ের ধারে এসে মাছগুলি খাবি খেতে থাকবে। 

৩। পুকুর বা জলাশয়ের জলের রং ও স্বচ্ছতার পরিবর্তন হতে পারে।  

৪। পুকুর বা জলাশয়ের জলে নোংরা গন্ধ হতে পারে। 

এক্ষেত্রে বড়ো মাছগুলি প্রথমে মরতে শুরু করবে অথবা তার পাশাপাশি অন্যান্য আকারের মাছের উপরও এর প্রভাব পরবে।  

মাছ মরা আটকাতে করণীয়

১। পুকুর বা জলাশয়ে প্রচুর পরিমানে সার দেওয়া যাবে না।  বেশি সংখ্যাই মাছ মারা যাবে না। 

২। পশুর মল – মূত্র সরাসরি পুকুর বা জলাশয়ে না এসে পরে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। 

৩। বর্ষার সময় ছাড়া অন্য কোনো সময়ে আগাছানাশক দেওয়া যাবে না।  যদি একান্ত আগাছানাশক দেওয়ার দরকার হয় তাহলে পুকুর বা জলাশয়ের এক তৃতীয়ংশ প্রয়োগ করতে হবে। 

৪। পুকুর বা জলাশয়ে অক্সিজেনের অভাব হলে এয়ারসেন বা বায়ু সঞ্চালক যন্ত্র কিংবা পাম্প মেশিনের দ্বারা অক্সিজেনের যোগান দিতে হবে। 

সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় 

পুকুর বা জলাশয়ের জলের গুনাগুন নিয়মিত পরীক্ষা করা। 

জলে দ্রবীভূত অক্সিজেনের পরিমান পরীক্ষা করতে হলে পুকুর বা জলাশয়ের উপরিভাগের জল, তলদেশের জল এবং পুকুর বা জলাশয়ের জলের প্রবেশদ্বার ও প্রস্থান থেকে নমুনা সংগ্রহ করতে হবে।  

তারপর পরীক্ষার পর সাধারণত একটি সমস্যা চিন্নিত করতে হবে।  

খেয়াল রাখবেন 

পুকুরের জলের গুনাগুন খুব তাড়াতাড়ি ( ঘন্টার মধ্যে ) পরিবর্তন হতে পারে।  

বিকেলে অক্সিজেনের পরিমান মাছের জন্য পর্যাপ্ত মনে হলেও এই পরিমান রাতের দিকে খুব তাড়াতাড়ি কমে গিয়ে মাছের মৃত্যুর কারণ হতে পারে। 

তাই মাছ চাষীদের কর্তব্য পুকুর বা জলাশয়ের জলের গুনাগুন নিয়মিত পরীক্ষা করা।  


আরও পড়ুন ক্লিক করে – হাত ধোয়ার প্রয়োজনীয়তা। 

আরও পড়ুন – ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়া জনিত রোগ 

আমি উপরে মাছ চাষের সমস্যা ও সমাধান, পুকুরে মাছ মরার কারণ, পুকুরের মাছ ভাসার কারণ, হঠাৎ মাছ বেশি মরে যাওয়ার কারণ, পুকুরে অক্সিজেনের অভাব হলে করণীয়, মাছ মরা আটকাতে করণীয়, পুকুরের মাছ মরা আটকাতে করণীয় ইত্যাদি সম্পৰ্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি।

আশা করি এই পোস্টটি থেকে আপনি অনেক কিছু জানতে পেরেছেন।

আপনাকে অনেক ধন্যবাদ এই পোস্টটি পড়ার জন্য।

সবার উপকারের জন্য এই পোস্টটি শেয়ার করার অনুরোধ রইলো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here